কেউ কেউ প্রশ্ন করছেন বাংলাদেশের মানুষ কি কেনা কাটা বন্ধ করে দিয়েছে নাকি! আবার কেউ কেউ বলছেন ঘরে ঘরে ব্যবসা খুলে বসলে কিনবে কারা!!
মজার একটা প্রশ্ন করি। আপনারা যারা অনলাইন ব্যবসা করছেন তারা নিজেরা অনলাইন থেকে কয়টা পণ্য কিনেন?
একটা ছোট্ট গল্প বলি, এটি একটি সত্য ঘটনা। একলোক অনলাইনে ব্যবসা করার জন্য সাথে আরও দশ জন লোক নিয়ে একটা ওয়েব সাইট চালু করলেন, শুরু করার পর তিনদিন হয়েগেল কিন্তু তার সাইটে কোন ক্রেতা কিংবা বিক্রেতা আসল না। তারপর তারা সিদ্ধান্ত নিলেন নিজেরাই তাদের সাইটে নিজেদের অপ্রয়োজনীয় জিনিস পত্র বিক্রি করবেন, এই দেখে কিছু বিক্রেতা তাদের পেইজে আসলেন নিজেদের পণ্য বিক্রি করতে, কিন্তু তখনু কোন ক্রেতার দেখা মিল্লনা। তখন এই দেখে তারা আরও একটা সিদ্ধান্ত নিলেন যে সাইট থেকে তারা নিজেরাই পণ্য কিনতে শুরু করলেন এবং একপর্যায়ে ক্রেতারাও আসতে শুরু করল।
গল্পের মূল উদ্দেশ্য ছিল এইযে মানুষ যতক্ষণ বেচে আছে ততক্ষন কেনা কাটা চলবে, হউক সেটা শাড়ি গহনা, কিংবা ঔষধ পত্র। কিন্তু তারা কেন অনলাইন থেকে কিনতে রাজি নয় সেই বিষয়টি আবিষ্কার করার দায়িত্ব অনলাইন ব্যবসায়ি দের।
শুধু পণ্য কেনা বেচা কেন, জীবনের কোন বিষয়টা মানুষ অনলাইনে করছেনা বহিরবিশ্বে। আমাদের এখানে হবেনা কেন? অবশ্যই হবে, কিন্তু তার জন্য কিছু কারন লাগবে।
আপনারা যদি চান তাহলে আমি ভবিষ্যতে অনলাইনে ক্রেতা কিভাবে পাবেন তার উপরে লিখব, আমার বিষয়ে ঘাটা ঘাটি কইরেন না। আমি একজন সাধারন মামুলি মানুষ, বাঙালির চিরন্তন সভাব জ্ঞান দিতে ভালবাসি।
আর হ্যাঁ, উপরের গল্পটি পৃথিবীর ইতিহাসে এই যাবত কালের সবচাইতে সফল অনলাইন ব্যবসা সাইট আলিবাবার জ্যাক’মার গল্প।